;

রাজশাহী

সংস্কৃত ‘রাজ’ ও ফারসি ‘শাহ’ এর বিশেষণ ‘শাহী’ শব্দযোগে ‘রাজশাহী’

রাজশাহীর ইতিহাস

এই জেলার নামকরণ নিয়ে প্রচুর মতপার্থক্য রয়েছে তবে ঐতিহাসিক অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়র মতে রাজশাহী রাণী ভবানীর দেয়া নাম। অবশ্য মিঃ গ্রান্ট লিখেছেন যে, রাণী ভবানীর জমিদারীকেই রাজশাহী বলা হতো এবং এই চাকলার বন্দোবস্তের কালে রাজশাহী নামের উল্লেখ পাওয়া যায়। পদ্মার উত্তরাঞ্চল বিস্তীর্ন এলাকা নিয়ে পাবনা পেরিয়ে ঢাকা পর্যন্ত এমনকি নদীয়া, যশোর, বর্ধমান, বীরভূম নিয়ে [৪] এই এলাকা রাজশাহী চাকলা নামে…

বিস্তারিত

ঘুরে আসুন উৎসব পার্ক : রাজশাহী

ঘুরে আসুন উৎসব পার্ক : রাজশাহী

ভ্রমণ প্রেমী মাত্রই ছুট পেলে বেড়িয়ে পড়েন নতুন নতুন জায়গার সন্ধানে। তবে আশেপাশেই রয়েছে দেখার মত অনেক জায়গা। প্রতিদিনের ব্যস্ত জীবন থেকে কিছুটা অবকাশ নিয়ে পরিবারের সবাইকে নিয়ে ঘুরে আসলে মন্দ হয়না। বিনোদন আর আনন্দের ছোঁয়া দিতে তাই গড়ে উঠেছে

বড়কুঠি : রাজশাহীর সর্বপ্রাচীন ইমারত

বড়কুঠি : রাজশাহীর সর্বপ্রাচীন ইমারত

আমাদের দেশের বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থাপনা আমাদের অতীত ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে ধারণ করে এখনো স্বমহিমায় নিজের অস্তিত্ব জানান দেয়। প্রতিটি জেলার এসব ঐতিহাসিক স্থাপনা যেমন আমাদের দেশের সৌন্দর্যের অন্যতম অনুষঙ্গ তেমনি পর্যটকদেরও আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু। এসব ঐতিহাসিক স্থাপনা যেমন আমাদের অতীতের চিহ্ন

সরমংলা ইকো পার্ক, রাজশাহী

সরমংলা ইকো পার্ক, রাজশাহী

শহরের কালো ধোঁয়া থেকে মুক্ত হয়ে সবুজ বনানীর স্নিগ্ধতায় প্রাণ ভরে নির্মল আলো-বাতাস নিতে কার না মন চায়। নাগরিক যান্ত্রিকতা থেকে দূরে পালিয়ে পরিবার-পরিজন বা বন্ধুদের নিয়ে মনোরম কোনো জায়গায় আনন্দে মেতে উঠলে মন্দ হয় না। পাখ-পাখালীর কলতান আর সবুজের

রাজশাহীর অপরুপ বাঘা মসজিদ

রাজশাহীর অপরুপ বাঘা মসজিদ

বরেন্দ্র অঞ্চলের প্রাণকেন্দ্র রাজশাহী। প্রাচীন পুণ্ড্রবর্ধন জনপদের অংশ রাজশাহীর জনবসতি হাজার বছরের ঐতিহ্য বহন করছে। প্রমত্তা পদ্মার তীরে অবস্থিত এই অঞ্চল একসময় মৌর্য, গুপ্ত,, পাল, সেন, মোগল, ইংরেজরা এই অঞ্চল শাসন প্রতিষ্ঠা করেন। সেই সব অতীত ইতিহাসের নিদর্শন হিসেবে এখানে

পুঠিয়ার পুরাকীর্তি, রাজশাহী: যা যা দেখতে পারবেন

পুঠিয়ার পুরাকীর্তি, রাজশাহী: যা যা দেখতে পারবেন

রাজশাহী জেলার প্রাচীন উপজেলা পুঠিয়া। যেমন প্রাচীন তেমনি এটি ইতিহাস-সমৃদ্ধও। প্রাচীন পুণ্ড্রবর্ধন জনপদের অংশ  পুঠিয়া লালন করছে হাজার বছরের ঐতিহ্য। ইতিহাস আর সভ্যতার নানা নিদর্শন  এখনো ছড়িয়ে আছে এই এলাকা জুড়ে। প্রাচীন জমিদার বাড়ির জন্য পুঠিয়া অত্যন্ত বিখ্যাত। পুঠিয়া রাজবংশ

ঘ্রাণে ঘ্রাণে আম বাগানে

ঘ্রাণে ঘ্রাণে আম বাগানে

ফেসবুক ফ্রেন্ড সোলায়মান বাবু রাজশাহীর আম বাগানে ঘোরার আমন্ত্রণ জানালেন। কিন্তু তিনি সরকারি চাকরীর সুবাদে থাকেন ঈশ্বরদী। তাই প্রথমে আমাদেরকে পাবনার ঈশ্বরদী যেতে হয়েছিল। তবে সময়টা মন্দ কাটেনি। বাড়তি পাওনা হিসেবে, সেদিনের বিকেলটা আলহাজ্জ মোড়ে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কেন্দ্র ও

ঘুরে এলাম রাজশাহীর পুঠিয়া রাজবাড়ি

ঘুরে এলাম রাজশাহীর পুঠিয়া রাজবাড়ি

বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা জমিদারবাড়িগুলোর অন্যতম রাজশাহী জেলার দৃষ্টিনন্দন পুঠিয়া রাজবাড়ি। রাজশাহী জেলার পুঠিয়া উপজেলায় এর অবস্থান। বাঘার আম বাগান ঘুরে ঠিক গোধূলি বেলায় ইতিহাস-ঐতিহ্য আর ভালোবাসার নিদর্শন হিসেবে এখনো টিকে থাকা কালের সাক্ষী জমিদারবাড়িটিতে হাজির হলাম। গাড়ি থেকে নেমেই

পুঠিয়ার পুরাকীর্তি, রাজশাহী

পুঠিয়ার পুরাকীর্তি, রাজশাহী

রাজশাহী নামে এক বিস্তীর্ণ জমিদারি ছিল ১৭শ শতকের দিকে এ জমিদারির অংশ ছিল প্রায় ১৩০০০ বর্গ মাইল। রাজশাহী, মালদহ, পাবনা, বগুড়া, মুর্শিদাবাদ, নদীয়া, যশোর, বীরভূম ও বর্ধমানের প্রত্যন্ত অঞ্চল এ জমিদারির অন্তর্গত ছিল। পুঠিয়া উক্ত জমিদারির একটি অংশ ।। পুঠিয়া

ঘুরে আসি রাজশাহী

ঘুরে আসি রাজশাহী

ইতিহাস, ঐতিহ্য আর পুরাকীর্তির নিদর্শনের জন্য রাজশাহী জলো গুরুত্বপূর্ণ হয়ে আছে। প্রাচীন পুণ্ড্রবর্ধন নামক জনপদের অংশ ছিল আজকের এই রাজশাহী। এ অঞ্চলের জনবসতিও অনেক পুরনো। পদ্মানদী খ্যাত রাজশাহী জেলার আয়তন ২৪০৭ বর্গ কিলোমিটার। আজ আপনারে সামনে তুলে ধরছি এই জেলায়