;

কক্সবাজার

পালংকী থেকে কক্সবাজার

কক্সবাজারের ইতিহাস

কক্সবাজার নামকরণের পেছনে রয়েছে ছোট্ট একটা ইতিহাস। এর প্রাচীন নাম ছিল পালংকী। একসময় এটি প্যানোয়া নামে পরিচিত ছিল। প্যানোয়া শব্দটির অর্থ ‘হলুদ ফুল’।অতীতে কক্সবাজারের আশপাশের এলাকাগুলো এই হলুদ ফুলে ঝকমক করত। এটি চট্টগ্রাম থেকে ১৫৯ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত। আধুনিক কক্সবাজারের নামকরণ করা হয়েছে প্রখ্যাত বিট্রিশ নৌ-অফিসার ক্যাপ্টেন হিরাম কক্স (মৃত্যু-১৭৯৮) এর নামানুসারে। যিনি ব্রিটিশ ইন্ডিয়ার আর্মি অফিসার ছিলেন। ইতিহাসঃ কক্সবাজারের…

বিস্তারিত

রাডার স্টেশন, কক্সবাজার

রাডার স্টেশন, কক্সবাজার

কক্সবাজার ভ্রমনপিপাসুদের জন্য জনপ্রিয় একটি জায়গা। সমুদ্র সৈকত মানেই অনেকে বুঝেন কক্সবাজার। প্রাকৃতিক নিসর্গের কক্সবাজার জেলাটি শুধু এর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের জন্যই বিখ্যাত নয়, এখানে রয়েছে দারুণ সৌন্দর্যের অসংখ্য দর্শনীয় স্থান। এই জেলাটিতে প্রাকৃতিক নিসর্গের জায়গা ছাড়াও দেখার মত অনেক

মগনামা ঘাট, কক্সবাজার

মগনামা ঘাট, কক্সবাজার

সমুদ্র কন্যা কক্সবাজার মানেই দিগন্ত-জোড়া সমুদের জলরাশি আর দীর্ঘ সৈকতে আছড়ে পড়া ঢেউয়ের অপার সৌন্দর্য। আর তাইতো পর্যটকরা ছুটে যান কক্সবাজারে। তবে শুধু সাগরের অপরূপ সৌন্দর্যই নয়, কক্সবাজারের আছে দেখার মত আরো অনেক কিছু। টেকনাফের সেন্টমার্টিন, চকরিয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব

টেকনাফ বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য

টেকনাফ বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য

উঁচু-নিচু বিশাল পাহাড়ের নিচে বিশাল গর্জন বাগান, তার পাশে নাফ নদী। মিয়ানমার সীমান্ত ঘেঁষা নীল জলের শান্ত নাফ নদীতে পালতোলা নৌকা, জেলেদের মাছ ধরার অপূর্ব দৃশ্য আর পাহাড়ের পাশে নির্জন সবুজ বনে ঘুরে বেড়ানোর অপার সুযোগ পেতে হলে আপনাকে যেতে

কুদুম গুহা, টেকনাফ

কুদুম গুহা, টেকনাফ

কক্সবাজারের টেকনাফ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক অপরূপ লীলাভূমি। আর তাইতো এটি পরিণত হয়েছে পর্যটকদের পছন্দের ভ্রমণ গন্তব্যে। সীমান্ত নগরী এই উপজেলাটিতে রয়েছে প্রাকৃতিক শোভায় ঘেরা বেশ কয়েকটি আকর্ষণীয় পর্যটন স্থান। এখানে প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন, ছেঁড়া দ্বীপ, মাথিনের কূপ, টেকনাফ সমুদ্র সৈকতসহ

বেদনা বিধুর মাথিনের কূপ, টেকনাফ

বেদনা বিধুর মাথিনের কূপ, টেকনাফ

কক্সবাজার মানেই দিগন্ত-জোড়া সমুদ্রের জলরাশি আর দীর্ঘ সৈকতে আছড়ে পড়া ঢেউয়ের অপার সৌন্দর্য। আর তাইতো পর্যটকরা ছুটে যান কক্সবাজারে। তবে শুধু সাগরের অপরূপ সৌন্দর্যই নয়, কক্সবাজারের আছে দেখার মত আরো অনেক কিছু। এখানকার দর্শনীয় স্থানের মধ্যে একটি হল টেকনাফের মাথিনের

কক্সবাজারের কুতুবদিয়া দ্বীপের ঐতিহাসিক বাতিঘর

কক্সবাজারের কুতুবদিয়া দ্বীপের ঐতিহাসিক বাতিঘর

প্রাকৃতিক নিসর্গের কক্সবাজার জেলাটি শুধু এর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের জন্যই বিখ্যাত নয়, এখানে রয়েছে দারুণ সৌন্দর্যের কুতুবদিয়া দ্বীপ। এই দ্বীপটিতে দেখার মত অনেক কিছুই রয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম একটি আকর্ষণীয় স্থান হল বাতিঘর বা লাইট হাউজ। ঐতিহাসিক এই বাতিঘরটি পর্যটকদের

সেন্টমার্টিনের সবচেয়ে জনপ্রিয় রিসোর্ট ও হোটেলসমূহ!

সেন্টমার্টিনের সবচেয়ে জনপ্রিয় রিসোর্ট ও হোটেলসমূহ!

বাংলাদেশের অন্যতম সেরা দর্শনীয় স্থান হলো কক্সবাজারের সেন্টমার্টিন। পর্যটকদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে সবসময়ই থাকে ‘বঙ্গোপসাগরের টিপ’ বলে খ্যাত এই দ্বীপটি। অন্যান্যবারের মতো এবছরও অসংখ্য পর্যটক পাড়ি জমাবেন সেন্টমার্টিনে। কিন্তু রাত্রিযাপনের জন্য এই দ্বীপে হোটেল বা রিসোর্ট ঠিক করতে গিয়ে সমস্যায় পড়ে

সেন্ট মার্টিনস দ্বীপ কিভাবে বাংলাদেশের হলো?

সেন্ট মার্টিনস দ্বীপ কিভাবে বাংলাদেশের হলো?

বাংলাদেশের পর্যটকদের কাছে সবচেয়ে আকর্ষণীয় জায়গার মাঝে সেন্ট মার্টিন দ্বীপ অন্যতম। কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে নয় কিলোমিটার দক্ষিণে নাফ নদীর মোহনায় এ দ্বীপটি অবস্থিত। সম্প্রতি মিয়ানমার সরকার তাদের একটি জনসংখ্যা বিষয়ক মানচিত্রে সেন্ট মার্টিন দ্বীপকে সে দেশের অংশ দেখিয়েছে বলে বাংলাদেশ

সেন্টমার্টিনের সাতকাহন

সেন্টমার্টিনের সাতকাহন

আগামি বছরের মার্চ থেকে নাকি সেন্ট মার্টিন থাকা যাবে না তাই প্ল্যান করলাম এই সিজনেই যাব, যেই কথা সেই কাজ, প্ল্যান করার ২ দিন পর জার্নি শুরু করলাম,,,, যাত্রা শুরু ৫ হাজার টাকা নিয়ে লালবাগ থেকে, প্রথম দিন (৮/১১/১৮) বৃহস্পতিবার

বাইকে সাজেক, রাঙ্গামাটি, বান্দরবান, কক্সবাজারে দুজনে!

বাইকে সাজেক, রাঙ্গামাটি, বান্দরবান, কক্সবাজারে দুজনে!

আমাদের মোট ৭ দিনের (অক্টোবর ০৬ – অক্টোবর ১২, ২০১৮) এই ট্যুরের রুট প্ল্যানটি ছিলো এমন ঢাকা – খাগড়াছড়ি – সাজেক – কাপ্তাই – রাঙ্গামাটি – বান্দরবান – কক্সবাজার – ঢাকা। এই ট্যুরের প্রধান বিশেষত্ব হল, সম্পূর্ণ ট্যুরটি ছিল মোটরসাইকেলে,