;

নীলফামারী

‘নীল খামার’ থেকে ‘নীল খামারী’ থেকে নীলফামারী

নীলফামারীর ইতিহাস

দুই শতাধিক বছর পূর্বে এ অঞ্চলে নীল চাষের খামার স্থাপন করে ইংরেজ নীলকরেরা। এ অঞ্চলের উর্বর ভূমি নীল চাষের অনুকূল হওয়ায় দেশের অন্যান্য এলাকার তুলনায় নীলফামারীতে বেশি সংখ্যায় নীলকুঠি ও নীল খামার গড়ে ওঠে। ঊণবিংশ শতাব্দীর শুরুতেই দুরাকুটি, ডিমলা, কিশোরগঞ্জ, টেঙ্গনমারী প্রভৃতি স্থানে নীলকুঠি স্থাপিত হয়। সে সময় বৃহত্তর রংপুর অঞ্চলের মধ্যে নীলফামারীতেই বেশি পরিমাণে শস্য উৎপাদিত হতো এখানকার উর্বর…

বিস্তারিত

নীলফামারীর নীলসাগর

নীলফামারীর নীলসাগর

নীলসাগর, দেশের উত্তরাঞ্চলের জেলা নীলফামারী অতি প্রাচীন একটি দর্শনীয় স্থান। এক সময় এর নাম ছিল বিন্নাদিঘী। এই দর্শনীয় স্থানটি জেলা শহর থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে উত্তর পশ্চিম দিকে অবস্থিত। নীলসাগর ৩৭ একর জমির ওপর নির্মিত সবুজ গাছপালায় ঘেরা চারপাশ।

হরিশচন্দ্রের পাঠ বা রাজবাড়ী

হরিশচন্দ্রের পাঠ বা রাজবাড়ী

জলঢাকা থানার খুটামারা ইউনিয়নের অন্তর্গত পাথর খন্ডে পরিপূর্ণ সুপ্রাচীন ধ্বংসাবশেষ টিলা হরিশচন্দ্রের পাঠ বা রাজবাড়ী। এটি চাড়াল কাটা নদীর দক্ষিণ তীরে প্রায় এক বিঘা জমির উপর উঁচু ঢিবি। ঢিবির উপর পাঁচ খন্ড বড় কাল পাথর জড়ে আছে। পাথরগুলো ঢিবির মাটিতে

চিনি মসজিদ, নীলফামারী

চিনি মসজিদ, নীলফামারী

সৈয়দপুর বাংলাদেশের প্রাচীন শহরগুলোর মধ্যে একটি। ব্যবসা বানিজ্যের জন্য এই শহরটি অনেক আগে থেকেই প্রসিদ্ধ এছাড়াও রেলের শহর হিসেবেও এটি পরিচিত। এই শহরের দুর্লভ একটি স্হাপত্য হচ্ছে সৈয়দপুরের চিনি মসজিদ(Chini Mosjid) বা চীনা মসজিদ। চিনি মসজিদের রয়েছে সুদীর্ঘ ইতিহাস,১৮৬৩ সালে

শীতে নীলফামারির পিঠা

শীতে নীলফামারির পিঠা

সারা দেশের ন্যায় নীলফামারীতেও শীত পরার সাথে সাথে পিঠা খাওয়ার ধুম পড়ে যায়। অগ্রহায়ণ মাসে নতুন ধান কাটার সাথে সাথেই এ অঞ্চলে পিঠা খাওয়ার মৌসুম শুরু হয়। সারা শীত মৌসুমটাই চলে পিঠা খাওয়ার ধুম। অবস্থা সম্পন্ন ধনী পরিবারের মধ্যে রকমারি