;

চট্টগ্রাম

পার্বত্য বিভাগ ও সমুদ্র বন্দর

চট্টগ্রামের ইতিহাস

সীতাকুন্ড এলাকায় পাওয়া প্রস্তরীভূত অস্ত্র এবং বিভিন্ন মানবসৃষ্ট প্রস্তর খন্ড থেকে ধারণা করা হয় যে, এ অঞ্চলে নব্যপ্রস্তর যুগে অস্ট্রো-এশিয়াটিক জনগোষ্ঠীরবসবাস ছিল। তবে, অচিরে মঙ্গোলদের দ্বারা তারা বিতাড়িত হয় (হাজার বছরের চট্টগ্রাম, পৃ‌২৩)। লিখিত ইতিহাসে সম্ভবত প্রথম উল্লেখ গ্রিক ভৌগোলিক প্লিনির লিখিত পেরিপ্লাস। সেখানে ক্রিস নামে যে স্থানের বর্ণনা রয়েছে ঐতিহাসিক নলিনীকান্ত ভট্টশালীর মতে সেটি বর্তমানের সন্দীপ। ঐতিহাসিক ল্যাসেনের ধারণা…

বিস্তারিত

আন্দরকিল্লা শাহী জামে মসজিদ, চট্টগ্রাম

আন্দরকিল্লা শাহী জামে মসজিদ, চট্টগ্রাম

ঐতিহাসিক বিভিন্ন স্থাপনা আমাদের অতীত ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে ধারণ করে এখনো স্ব-মহিমায় নিজের অস্তিত্ব জানান দেয়। প্রতিটি জেলার এসব ঐতিহাসিক স্থাপনা যেমন আমাদের দেশের সৌন্দর্যের অন্যতম অনুষঙ্গ তেমনি পর্যটকদেরও আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু। এসকল স্থাপনার মধ্যে একটা বড় অংশ জুড়ে আছে দেশের

পাথরঘাটায় ৪০০ বছর ধরে চলছে বড়দিনের উৎ​সব!

পাথরঘাটায় ৪০০ বছর ধরে চলছে বড়দিনের উৎ​সব!

একসময় বড়দিন উপলক্ষে জমজমাট বল নাচের আসর বসত। ‘ক্রিসমাস ড্যান্স’ ও ‘নিউ ইয়ার ড্যান্সের’ আয়োজন চলত অনেক দিন ধরে। এখন নাচের আসর হলেও সেই বল নাচ হারিয়ে গেছে। তবে বড়দিনের আমেজ আগের মতোই আছে। কথা হচ্ছিল চট্টগ্রামের পাথরঘাটার পুরোনো বাসিন্দা

কমনওয়েলথ ওয়ার সিমেট্রি, চট্টগ্রাম

কমনওয়েলথ ওয়ার সিমেট্রি, চট্টগ্রাম

পার্বত্য জেলা চট্টগ্রামের সৌন্দর্যের যেন কোনো শেষ নেই। আকর্ষণীয় পর্যটন নিদর্শনে ভরপুর পাহাড় কন্যা চট্টগ্রাম। পাহাড়, সাগর, আঁকাবাঁকা পাহাড়ি সড়ক,বন্যপ্রাণীর অভয়ারণ্য, ঝাউবন, ঝুলন্ত সেতু, সমুদ্রবন্দর- কি নেই এখানে। অসংখ্য দেখার মত জায়গায় ভরপুর চমৎকার এই জেলাটি।পাহাড়, হ্রদ, সবুজ বনানী ঘেরা

বাঁশবাড়িয়া সমুদ্র সৈকত, চট্টগ্রাম

বাঁশবাড়িয়া সমুদ্র সৈকত, চট্টগ্রাম

ঘড়ির কাঁটাতে ঠিক তখন দুপুর একটা বাজি বাজি বারে আবার বৃহস্পতিবার ব্যাংকে কাজের খুব চাপ। এর মধ্যে মোবাইল ফোন বেজেই চলছে। কাজের যন্ত্রণায় ফোন ধরছিলাম না। অনেক সময় ধরে বাজছে শুনে ভাবলাম জরুরী কোন ফোন হয়তো। ওপাশ হতে ভেসে এলো সজল মামা’র কণ্ঠ ‘

বাইকে সাজেক, রাঙ্গামাটি, বান্দরবান, কক্সবাজারে দুজনে!

বাইকে সাজেক, রাঙ্গামাটি, বান্দরবান, কক্সবাজারে দুজনে!

আমাদের মোট ৭ দিনের (অক্টোবর ০৬ – অক্টোবর ১২, ২০১৮) এই ট্যুরের রুট প্ল্যানটি ছিলো এমন ঢাকা – খাগড়াছড়ি – সাজেক – কাপ্তাই – রাঙ্গামাটি – বান্দরবান – কক্সবাজার – ঢাকা। এই ট্যুরের প্রধান বিশেষত্ব হল, সম্পূর্ণ ট্যুরটি ছিল মোটরসাইকেলে,

দেশের প্রথম এনাটমি মিউজিয়াম চট্টগ্রামে!

দেশের প্রথম এনাটমি মিউজিয়াম চট্টগ্রামে!

চারপাশে নানা রকম ছোট বড় কঙ্কাল।  মাথার উপর থেকে যেনো বিশাল কোন এক প্রাণীর কঙ্কাল যেনো মাথা ছুঁয়ে যাচ্ছে। ভূতুরে এক আবহ যেনো। এমন কঙ্কালের সমাবেশ দেখতে যেতে হবে চট্টগ্রামের খুলশিতে। চট্টগ্রামের খুলশিতে অবস্থিত ভেটেনারি ও এনিমেল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের এনাটমি

কমলদহ ট্রেইল, চট্টগ্রাম: একসাথে অনেকগুলো ঝর্ণা দেখবেন যেখানে

কমলদহ ট্রেইল, চট্টগ্রাম: একসাথে অনেকগুলো ঝর্ণা দেখবেন যেখানে

অসংখ্য সৌন্দর্যের এক উপাখ্যান চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড উপজেলা। সৌন্দর্যে মোড়ানো এই উপজেলায় প্রকৃতির সবকিছুই আছে। পাহাড়, পর্বত, ঝর্ণা, ট্রেইল, ইকো পার্ক কি নেই এখানে! সীতাকুণ্ডের গহীন পাহাড়ে কি পরিমাণ রহস্য আর সৌন্দর্য যে লুকিয়ে আছে তা সেখানে না গেলে বিশ্বাস

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড বোটানিক্যাল গার্ডেন ও ইকোপার্ক

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড বোটানিক্যাল গার্ডেন ও ইকোপার্ক

অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের তীর্থস্থান হিসেবে খ্যাত চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড। এই স্থানটি বর্তমানে পর্যটকদের আকর্ষণে অনেকটা শীর্ষে। বিশেষত সীতাকুণ্ডের বৈচিত্র্যময় প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত স্থানগুলো যেকোনো ভ্রমণকারীকে মোহিত করে। আর সীতাকুণ্ডের দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি পর্যটনকেন্দ্র হলো বোটানিক্যাল গার্ডেন ও ইকোপার্ক। নাগরিক

মিনি বাংলাদেশ বা স্বাধীনতা কমপ্লেক্স, চট্টগ্রাম

মিনি বাংলাদেশ বা স্বাধীনতা কমপ্লেক্স, চট্টগ্রাম

আকর্ষণীয় পর্যটন নিদর্শনে ভরপুর পাহাড় কন্যা চট্টগ্রাম। পাহাড়, সাগর, আঁকাবাঁকা পাহাড়ি সড়ক,বন্যপ্রাণীর অভয়ারণ্য, ঝাউবন, ঝুলন্ত সেতু, সমুদ্রবন্দর- কি নেই এখানে। চট্টগ্রামের পাহাড়-অরণ্যের সৌন্দর্য হয়ত অনেকেই দেখেছেন। এবার ঘুরে আসুন একটু ভিন্ন সৌন্দর্যের জায়গা থেকে। হ্যাঁ, বলছি চট্টগ্রামের কালুর ঘাটের মিনি

ফয়েস লেক কনকর্ড অ্যামিউজমেন্ট ওয়ার্ল্ড, চট্টগ্রাম

ফয়েস লেক কনকর্ড অ্যামিউজমেন্ট ওয়ার্ল্ড, চট্টগ্রাম

প্রাণ ভরে নির্মল আলো-বাতাস নিতে কার না মন চায়। নাগরিক যান্ত্রিকতা থেকে দূরে পালিয়ে পরিবার-পরিজন বা বন্ধুদের নিয়ে মনোরম কোনো জায়গায় আনন্দে মেতে উঠলে মন্দ হয় না। আর তাই সকল ব্যস্ততা, কোলাহল ছেড়ে অবসরে ঘুরে আসতে পারেন চট্টগ্রামের ফয়েজ লেক