;
থিরুভানানথাপুরাম - কোভালাম সৈকত
কোভালাম সৈকত

ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যে অবস্থিত থিরুভানানথাপুরাম ভ্রমণের জন্য একটা অসাধারণ জায়গা। এটা দেশের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও সুপরিকল্পিত শহরগুলির মধ্যে একটি। কেরালার সবটুকু সৌন্দর্য এই শহরে ফুটে উঠেছে এর বিস্ময়কর সবুজ শস্যভূমি ও মনোমুগ্ধকর সৈকতের জন্য। এই শহর চমৎকারভাবে রাজ্যের সংস্কৃতিকে তুলে ধরেছে। থিরুভানানথাপুরাম এর ভ্রমণের সব অসাধারণ জায়গা নিয়েই আজকের আয়োজন

পব্মনাভিস্বামী বিষ্ণু মন্দির:

থিরুভানানথাপুরাম শহরের এম জি রোডের দক্ষিণ প্রান্তে পব্মনাভিস্বামী বিষ্ণু মন্দির অবস্থিত। এই মন্দিরে প্রবেশের জন্য তৈরি করা হয়েছিক বিশাল এক দুর্গ। যা তৈরি হয়েছে দ্রাবিড়িয়ান স্থাপত্যরীতিতে। মন্দিরটি পবিত্র স্মৃতিমন্ডিত ও উৎসর্গীকৃত বর্তমান দেবতা থিরুভানানথাপুরাম, প্রভু বিষ্ণুর উদ্দেশ্যে। ত্রীবাঙ্কুরের মহারাজা ১৭৩৩ সালে এটা নির্মাণ করেন। এই মন্দিরটি শুধু হিন্দুদের জন্য উন্মুক্ত।থিরুভানানথাপুরাম

নেপিয়ার জাদুঘর:

এই নগরীর অন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ আকর্ষণ হলো অসাধারণ নেপিয়ার যাদুঘর । পুরাতন ভবনের এই যাদুঘরে ব্রোঞ্জ, আইভরী খোঁদাই, প্রাচীন সঙ্গীত যন্ত্র এবং কথাকলি নর্তক-নর্তকীদের স্বাভাবিক আকারের মূর্তিসমূহ রয়েছে। জাদুঘরটি পুরাতন সনাতন সভ্যতার বিশাল এক সাক্ষী বহন করে আছে।

শ্রী চিত্র শিল্প গ্যালারি:

থিরুভানানথাপুরাম শহরের শ্রী চিত্র আর্ট গ্যালারীতে মুঘল চিত্রাঙ্কন, তানজোর ও রাজপুত বিদ্যালয় এবং বিশেষ অংশ উৎসর্গীকৃত হয়েছে রাজা রবি বর্মার ছবির প্রতি। এছাড়াও চীন, বালি, তিব্বত এবং জাপানের শিল্পকর্ম এখানে স্থান পেয়েছে। এখানকার প্রতিটি স্থাপত্যকর্ম কোন না কোন বিশেষত্ব বহন করে।

থিরুভানানথাপুরাম- শ্রী চিত্র শিল্প গ্যালারি

কোভালাম সৈকত:

বিখ্যাত কোভালাম সমুদ্র সৈকতে যেতে শহর থেকে মাত্র ১৫ মিনিট সময় লাগে। এটা বিশ্বের সুন্দরতম সৈকত গুলির একটি। এর সুন্দর ব্যবস্থাপনার জন্য এটি ভারত জুড়ে প্রশংসিত। এটি নিরাপদ তটের জন্য তরঙ্গ ক্রীড়া, সাঁতার ও সমুদ্র-স্নানের উপযুক্ত স্থান। এখানে রাত্রিযাপনের ব্যবস্থাও রয়েছে।

কোল্লাম:

শহর থেকে ৬৬ কি.মি. দুরে অবস্থিত কোল্লাম ছিল রাজ্যের প্রাচীন বন্দর যেখানে সারা বিশ্ব থেকে জাহাজ আসতো। এখানে আস্তামুড়ি হ্রদ, প্রাচীন চার্চ, থিরুমুল্লাভরম সৈকত এবং কিছু হিন্দু তীর্থস্থান রয়েছে। এখান থেকে আল্লাপুজার নিস্তরঙ্গ জলে নৌবিহারের ব্যবস্থা আছে এবং রাত্রিযাপনের ভাল ব্যবস্থা রয়েছে।

নেইয়ার ড্যাম:

থিরুভানানথাপুরাম শহরের নেইয়ার ড্যামটি শহরের ২৯ কি.মি. সম্মুখে অবস্থিত। এর কাছেই একটা বন্যপ্রাণী অভয়াশ্রম ও একটা কুমির খামার আছে। এখানে নৌবিহারের সুন্দর ব্যবস্থা ও পাহাড়ে দুর্গম পথ দেখার ব্যবস্থা রয়েছে।

থিরুভানানথাপুরাম - নেইয়ার ড্যাম

পনমুড়ি:

থিরুভানানথাপুরাম থেকে ৬১ কি.মি. দুরে এবং সী লেভেলের ৩০০০ ফিট উপরে পনমুড়ি হলো আদর্শ হ্যামলেট। স্থানীয় জনগণের সাথে জনপ্রিয় সাপ্তাহিক ছুটি কাটাতে গেলে দেখা যাবে এখানে আকর্ষণীয় কটেজ এবং সিলভান পাহাড়ে দর্শনীয় সীমাহীন দুর্গম পথ রয়েছে। এখানে রাত্রিযাপনের সুব্যবস্থা আছে।

জুওলজিক্যাল গার্ডেন:

এই জুওলজিক্যাল গার্ডেনকে এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে সুপরিকল্পিত বলে গণ্য করা হয়ে থাকে। চিড়িয়াখানার মধ্যেকার বোটানিক্যাল গার্ডেন গ্রীষ্মমণ্ডলীয় প্রায় সমস্ত গাছ স্থান পেয়েছে। এটি থিরুভানানথাপুরাম শহরে অন্যতম চিত্তাকর্ষক নিদর্শন।

কন্ট্রিবিউটর – মীর মাইনুল ইসলাম

Facebook Comments
এক নজরে থিরুভানানথাপুরাম ট্রাভেল গাইড