;

সুলতান গিয়াস উদ্দিন আযম শাহ এর সমাধী, নারায়ণগঞ্জ

ঢাকার অদূরে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার একটি ছোট গ্রামের নাম শাহচিল্লাপুর। আর দশটি গ্রামের মত এই গ্রামের নামটি সাধারণ মানুষের না জানাটাই স্বাভাবিক। কিন্তু এটি কেবল একটি গ্রাম নয়। এদেশে ইতিহাস-ঐতিহ্য নিয়ে যাদের আগ্রহ রয়েছে তাদের কাছে কিন্তু নামটি অজানা নয়। এর কারণটি হল বাংলার স্বাধীন সুলতান গিয়াস উদ্দিন আযম শাহ এর সমাধী এই গ্রামেই অবস্থিত।

প্রথম ইলিয়াস শাহী বংশের এ সুলতানের সমাধি পরিদর্শনে সারা বছরই পর্যটকের ভিড় জমে এই গ্রামে বাংলার প্রথম ইলিয়াস শাহী বংশের তৃতীয় ছিলেন সুলতান গিয়াস উদ্দিন আযম শাহ। বিস্তৃতির চেয়ে রাজ্যকে সুদৃঢ় করার দিকে তার মনযোগ ছিল বেশি। শিক্ষাক্ষেত্রে পৃষ্ঠপোষকতা ও সুশাসনের জন্য পুরো বাংলা জুড়েই সুনাম অর্জন করেছিলেন এই সুলতান। রাষ্ট্রীয় আইনের প্রতি ছিল তাঁর গভীর শ্রদ্ধা। তার দরবারে বিদ্বান লোকেরা সমাদর পেত। এছাড়াও তিনি আরবি ও ফারসি ভাষায় কবিতা লিখেছেন। পারস্যের বিখ্যাত কবি হাফিজের সঙ্গে তাঁর পত্রালাপ ছিল বলেও জানা যায়। বিখ্যাত কবি হাফিজ তাঁকে একটি গজল ও লিখে পাঠিয়েছিলেন। বাংলা সাহিত্যের উন্নতির ক্ষেত্রে যথেষ্ট অবদান ছিল এই সুলতানের।

সুলতান গিয়াস উদ্দিন আযম শাহ এর সমাধী, নারায়ণগঞ্জ

গিয়াসউদ্দীন আজম শাহ তাঁর পিতা ও পিতামহের ন্যায় আলেম ও সুফিদের খুব ভক্তি-শ্রদ্ধা করতেন। তাঁর সমসাময়িকদের মধ্যে শেখ আলাউল হক ও নূর কুতুব আলম খুব বিখ্যাত ছিলেন। এ ছাড়া পবিত্র মক্কা ও মদিনার তীর্থযাত্রীদের বহু সহায়তা করেছেন গিয়াস উদ্দিন। বিদেশি রাষ্ট্রের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের জন্য বিশেষভাবে পরিচিতি ছিল তার। ১৯২০ সালের ২২ নভেম্বর গিয়াস উদ্দিনের এই সমাধিকে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের পুরাকীর্তির তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে সরকার। সর্বশেষ ১৯৮৫ সালে এ সমাধিটির সংস্কারকাজ করে সরকার।

পুরো সমাধিটি কষ্টিপাথরে নির্মিত। এটি ১০ ফুট লম্বা, ৫ ফুট চওড়া ও ৩ ফুট এর মত উঁচু। সমাধির ৩ ফুট উচ্চতার খিলানের ওপর আরও দেড় ফুট উচ্চতায় ৭ ফুট লম্বা অর্ধবৃত্তাকার কষ্টিপাথরে ঢাকা। মূল সমাধির কার্নিশে রয়েছে সূক্ষ্ম কারুকাজ খচিত অলংকার। দুই পাশে রয়েছে তিনটি করে তিন খাঁজবিশিষ্ট খিলান। খাঁজের মধ্যে রয়েছে প্রলম্বিত শিকল ও ঝুলন্ত ঘণ্টার নকশা। সুলতান গিয়াস উদ্দিনের সমাধি বাংলাদেশের প্রাচীন ঐতিহ্যের অন্যতম নিদর্শন। এটি যত্নের সাথে রাখা যেমনি ঐতিহাসিক ভাবে গুরুত্বপূর্ণ তেমনি এটি পর্যটনের জন্যও বিখ্যাত এক স্থান।

ছবি – ইন্টারনেট 

কন্ট্রিবিউটর – মীর মাইনুল ইসলাম

Facebook Comments
সুলতান গিয়াস উদ্দিন আযম শাহ এর সমাধী, নারায়ণগঞ্জ